অনলাইনে শুরু হচ্ছে জাবির নতুন বর্ষের ক্লাসঃ সমন্বয়হীনতার অভিযোগ


sujon প্রকাশিত: ১১:০৯ অপরাহ্ণ ৮ মার্চ , ২০২২
অনলাইনে শুরু হচ্ছে জাবির নতুন বর্ষের ক্লাসঃ সমন্বয়হীনতার অভিযোগ

জাবি প্রতিনিধি: আগামীকাল (৯ মার্চ) শুরু হচ্ছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের (৫০ তম ব্যাচ) ক্লাস। সিট সংকট এবং করোনা মহামারির কারনে অনলাইনে শুরু হচ্ছে ক্লাস।

আগামীকাল স্নাতক প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হওয়ার কথা থাকলেও অনেক বিভাগ থেকেই শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ না করা এবং বিস্তারিত না জানানোর অভিযোগ উঠেছে। বেশ কয়েকটি বিভাগ জানিয়েছে প্রশাসন তাদের কোন দিকনির্দেশনা দেয় নি। তবে কয়েকটি বিভাগ নিজ উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সমাজবিজ্ঞান অনুষদের অধিকাংশ বিভাগই নতুন ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের  ক্লাস শুরু করার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা পায় নি। তবে নৃবিজ্ঞান, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা, ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞানসহ কয়েকটি বিভাগ শিক্ষার্থীদের সাথে ই-মেইল এবং মেসেঞ্জারের মাধ্যমে যোগাযোগ করেছে।

কলা অনুষদ এবং জীববিজ্ঞান অনুষদের প্রায় সবগুলো বিভাগের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। কলা অনুষদের একটি বিভাগ আজ (মঙ্গলবার) রাতের মধ্যে যোগাযোগ সম্পন্ন করবে বলে জানিয়েছে।

ব্যবসায় অনুষদের প্রায় সকল বিভাগের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগ এখনও শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করেনি। উক্ত বিভাগের শ্রেণি কার্যক্রম আগামী রবিবার থেকে শুরু করবে বলে জানিয়েছে।

পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ ছাড়া বিজ্ঞান অনুষদের অন্যান্য বিভাগ ইমেইলের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করেছে। তবে যাদের ই-মেইল পাওয়া যায় নি তাদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছে বলে জানা গিয়েছে। পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ থেকে কোন নির্দেশনা পায় নি বলে অভিযোগ উঠেছে।এ ব্যাপারে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্বে নিযুক্ত উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. মো: নূরুল আলম বলেন, “প্রশাসনের পক্ষ থেকে  শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য বিভাগগুলোকে জানানো হয়েছে । জুম লিংক সরবরাহ করতেও বলা হয়েছে।

কোন বিভাগ যোগাযোগ না করলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিষয়টি দেখবে”।

প্রথম বর্ষের ক্লাস স্ব-শরীরে শুরু করতে না পারাকে প্রশাসনের ব্যর্থতা দাবী করে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি রাকিবুল রনি বলেন, “ব্যর্থতার দায় ঢাকতে প্রশাসন করোনার প্রকোপ ও আবাসিক হলে আসন সংকটের কথা বললেও দেশে করোনা সংক্রমণের হার একেবারেই তলানীর দিকে এবং ক্রমাগত নিম্নগামী। তাছাড়া, হলগুলো থেকে অছাত্রদের বিতাড়নের যে হম্বিতম্বি প্রশাসন দেখয়েছিলো, সে অনুযায়ী কাজ তারা ইচ্ছাকৃতভাবেই করেনি”।

৫০ তম ব্যাচের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের এক শিক্ষার্থী দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ” বিশ্ববিদ্যালয় জীবন অনলাইনে শুরু করা আসলে হতাশা জনক। আমরা চাই দ্রুত স্ব-শরীরে ক্লাস শুরু করা হোক।”

ছাত্র ফ্রন্ট এর সাধারণ সম্পাদক কনোজ কান্তি রায় বলেন, “নতুন শিক্ষার্থীদের হাতে ডিজিটাল ডিভাইস এর ব্যবস্থা না করেই,সম্পুর্ন অযৌক্তিকভাবে অনলাইনমুখী পাঠদানের যে সিদ্ধান্ত, এটা  তো স্পষ্ট হঠকারীতা। জেনেশুনেই বিশাল অংকের একদল  শিক্ষার্থীকে ক্লাসবঞ্চিত করার যে প্রয়াস, আমরা সেটার নিন্দা জানাই”।