চারপাশে ধ্বংসযজ্ঞ, পরিবারের সঙ্গে কি দেখা হবে সাবরিনার


sraboni প্রকাশিত: ৯:২৩ পূর্বাহ্ণ ২৮ ফেব্রুয়ারি , ২০২২
চারপাশে ধ্বংসযজ্ঞ, পরিবারের সঙ্গে কি দেখা হবে সাবরিনার

বিনোদন ডেস্ক: দেশে যেতে পারছেন না। চেনা শহর ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। বোমার আঘাতে গুঁড়িয়ে গেছে বহু বাড়িঘর। আর তিনি আটকা পড়েছেন অন্য একটি দেশে। নিজ দেশে পরিবার-পরিজন। তাঁদের সঙ্গে কি ফের দেখা হবে? বুকে জড়িয়ে ধরতে পারবেন প্রিয়জনকে?

এমন নানা প্রশ্নই উঁকি দিচ্ছে ইউক্রেনের সাবেক মডেল সাবরিনার মনে। চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ছে অশ্রু। কিন্তু তিনি নিঃসহায়। আটকা পড়েছেন ভারতে। আর পরিবার আটকা পড়েছে নিজ দেশেই। খাবারও ফুরিয়ে আসছে সেখানে। কী হবে এর পর? তাঁর জন্মভূমি দক্ষিণ ইউক্রেনের খেরাসন শহর এখন রুশ আগ্রাসনের শিকার।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর, ইউক্রেনের সাবেক মডেল সাবরিনা এখন মুম্বাইয়ে। তাঁর ভয়, আদৌ কি তিনি আর ঘর, পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারবেন। জানুয়ারিতে ব্যবসায়িক কাজে তিনি ভারতে যান। বন্ধুদের সঙ্গে জমিয়ে আড্ডা দেবেন, এমন ইচ্ছে ছিল তাঁর। আগামী সপ্তাহে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন তাঁর সব স্বপ্ন ভেস্তে দিয়েছে।সাবরিনার ভাষ্য, ‘জানুয়ারিতে দেশ ত্যাগ করি। আর এখনও আমি জানি না কবে, কখন অথবা আদৌ পরিবারের সঙ্গে দেখা হবে কি না।’

সাবরিনা বলেন, ‘আমি এখনও হতভম্ভ। আমি খবর দেখছি—যেখানে যে কেউ ইউক্রেনের বিভিন্ন অংশ থেকে হৃদয়বিদারক দৃশ্য দেখতে পারে। আমি যখনই তাদের দেখি, আমাকে নাড়া দেয়। আমি দুঃস্বপ্নে বাস করছি এবং প্রতি মুহূর্তে আমার পরিবারের জন্য প্রার্থনা করছি। আমি এই মুহূর্তে শুধু একটি জিনিসের জন্য কৃতজ্ঞ যে তাদের এখনও ইন্টারনেট সংযোগ রয়েছে। আমি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারি। এ কথা বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।’

সাবরিনা জানান, তাঁর মা-বাবা ও বোন আলাদা শহরে বাস করেন। কথা বলতেও ভয় পাচ্ছেন তাঁরা। বোমার শব্দে তাঁদের ঘুম ভাঙছে। খুব শান্ত শহর বলে পরিচিত খেরাসন। তাঁর পরিবার সেখানে গৃহবন্দি। কিয়েভের মতো বড় শহর নয় খেরাসন। মানুষ যে লুকিয়ে থাকবে সে অবস্থাও নেই। একমাত্র উপায় গৃহবন্দি থাকা আর ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করা।

সাবরিনার পাঁচ বোন, মা-বাবা ও দাদা-দাদিরা থাকেন সেখানে। যুদ্ধ পরিস্থিতিতে তাঁর হৃদয় ভেঙে টুকরো হয়ে গেছে। তিনি এ-ও বলেন, ভারতে তিনি ভালো আছেন না কি খারাপ আছেন, সেই বোধটুকু এখন তাঁর নেই। জানেন না কী হতে চলেছে। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে অশ্রুভরা চোখে তাকিয়ে আছেন ইউক্রেনের সাবেক এই মডেল।