নারীদের রেইনকোট চুরি করাই তার নেশা


sraboni প্রকাশিত: ৭:৫৬ অপরাহ্ণ ২ অক্টোবর , ২০২২
নারীদের রেইনকোট চুরি করাই তার নেশা

ফিচার ডেস্ক: কত রকম চোরের কথাই তো শুনেছেন। গয়না চোর, মুরগি চোর, গরু চোর, মোবাইল চোর আরও কত কি! তবে রেইনকোট চোরের কথা জানেন কি? হ্যাঁ এবার এমনই এক চোর ধরা পড়েছে জাপানে। ৫১ বছর বয়সী সেই চোরের নেশা নারীদের রেইনকোট চুরি করা।১৩ বছর ধরে এই কাজ করছেন তিনি। এখন পর্যন্ত তার বাড়িতে পাওয়া গেছে ৩৬০টি রেইনকোট। ইয়োশিদো ইয়োদা নামের ওই ব্যক্তির বয়স বর্তমানে ৫১ বছর। পেশায় একজন সংবাদপত্র ডেলিভারি ম্যান। বিভিন্ন জায়গায় তিনি সংবাদপত্র ডেলিভারি করার সময় এই চুরিগুলো করতেন। তবে এত বছর ধরে এই কাজ করলেও এবারই প্রথম ধরা পড়েছেন পুলিশের হাতে।

ইয়োশিদোর বাড়ি থেকে পাওয়া রেইনকোটগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পুরোনোটি তিনি চুরি করেছিলেন ২০০৯ সালে। তবে গত ৯ বছরে চুরি করেছেন ৩২০টি রেইনকোট। নারীদের পার্ক করা স্কুটি বা সাইকেল থেকে এই রেইনকোটগুলো চুরি করতেন বলে জানিয়েছেন নিজেই। এরপর বাড়িতে সেগুলো সাজিয়ে রাখেন।

পুলিশের অনুমান যে তিনি তার ১৩ বছরের দীর্ঘ অপরাধমূলক কর্মজীবনে ১.১২ মিলিয়ন ইয়েন বা ৭ হাজার ৮০০ ডলার ক্ষতি করেছেন। তবে কেন তিনি এমনটা করেছেন সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি। জাপানে এখন তাকে ডাকা হচ্ছে ‘রেইনকোট ম্যান’। এর আগে জাপানের আরেক বাসিন্দা টেটসুও উরাতা চুরি করেছেন নারীদের অন্তর্বাস। এক বা দুইটি নয়, ওই ব্যক্তি ৭৩০টিরও বেশি অন্তর্বাস চুরি করেছেন।

এই ঘটনাটি ঘটেছিল জাপানের ওইটা প্রদেশে। টাকা দিয়ে চালিত স্বয়ংক্রিয় লন্ড্রি থেকে টেটসুও নারীদের ছয় জোড়া অন্তর্বাস চুরি করতে গিয়েছিল। সেসময়ই পুলিশের জালে ধরা পড়ে যায় টেটসুও। এরপরই তাকে আটক করে তার বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। সেখানে গিয়ে তাজ্জব বনে যান পুলিশরা। আরও ৭৩০টি অন্তর্বাস তার বাড়িতে খুঁজে পান তারা।