ফুটপাত দখলমুক্ত রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর


resma প্রকাশিত: ৫:০৩ অপরাহ্ণ ৬ মার্চ , ২০২২
ফুটপাত দখলমুক্ত রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফুটপাতগুলো দখলমুক্ত রাখতে এবং পথচারীদের চলাচলের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফুটপাত যেন হাঁটার উপযোগী থাকে, রাস্তা করার সময় সেভাবে নকশা করারও নির্দেশ দেন তিনি।

রোববার (৬ মার্চ) সকালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে নতুনভাবে অন্তর্ভুক্ত ১৮টি ওয়ার্ডের সড়ক অবকাঠামো ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণ ও উন্নয়ন (ফেজ-১) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় বাস্তবায়নাধীন উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের উদ্বোধন (ভার্চ্যুয়াল) অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাঁচকুড়া হাইস্কুল মাঠে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমাদের যারা ইঞ্জিনিয়ার বা আর্কিটেক্ট, যখন তারা কোনো প্ল্যান করবেন অন্তত ফুটপাতটা যেন মানুষের হাঁটার যোগ্য থাকে এবং সেটা যেন দখল না হয় যেদিকে দৃষ্টি দিয়েই করতে হবে।

রাস্তা পারাপারে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান সরকারপ্রধান। সরকার সীমিত শক্তি দিয়েই ঢাকা শহরকে যতদূর সম্ভব বসবাসের উপযোগী করার চেষ্টা করছে বলে জানান তিনি।

সরকারপ্রধান বলেন, ঢাকা শহরটাকে সীমিত শক্তি দিয়েই যতদূর সম্ভব আধুনিকায়ন করা, সবুজায়ন ও বসবাসের উপযোগী করার আমরা চেষ্টা করছি। নতুন ইউনিয়নগুলো যুক্ত করার মাধ্যমে ১৮টি ওয়ার্ড করেছি।

নাগরিক হিসেবে সবাইকে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষের যেমন নাগিরক সুবিধা ভোগ করার অধিকার আছে আবার তাদের নাগরিক দায়িত্বও পালন করতে হবে। যারা অধিকার ভোগ করবে তাদের দায়িত্বও পালন করতে হবে। আপনারা প্রত্যেকেই নিজ নিজ ঘরবাড়ি শুধু না, নিজের সামনের রাস্তাটাও যাতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকে, এই পরিচ্ছন্নতার দিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেবেন।

নাগরিকদের পানি-বিদ্যুৎ-গ্যাস ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা যে পানি পরিশুদ্ধ করে দেই, সেটা দিয়ে তো সব কাজই চলে। গাড়ি ধোঁয়া থেকে শুরু করে কনস্ট্রাকশনের কাজ থেকে শুরু করে সব করেন। কিন্তু এই পানি পরিশুদ্ধ করতে কত টাকা খরচ হয়, সেই হিসাবটা একটু জেনে নেবেন? সেখানেও আমাদের ভতুর্কি দিতে হচ্ছে। সেখানে ভতুর্কি দেওয়া কিন্তু ঠিক না। তাই বিল কমাতে পারেন, বিদ্যুতের বিলও কমাতে পারেন, পানির বিলও কমাতে পারেন, গ্যাসের বিলও কমাতে পারেন, যদি একটু আপনি সচেতন হন, সাশ্রয়ী হন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। বক্তব্য রাখেন সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। ২৪ ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এস এম জাকারিয়া হোসেন প্রকল্পের ওপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।