ভর্তি পরীক্ষার ৮ কোটি টাকা ভাগাভাগি: জাবিতে


yousuf প্রকাশিত: ৩:২৫ অপরাহ্ণ ২৪ ফেব্রুয়ারি , ২০২২
ভর্তি পরীক্ষার ৮ কোটি টাকা ভাগাভাগি: জাবিতে

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ভর্তি পরীক্ষার্থীদের থেকে আদায় হওয়া ৮ কোটি টাকা শিক্ষক-কর্মকর্তাদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেওয়ার অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) ও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনের কাউন্সিল কক্ষে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে ইউজিসি সদস্য ড. মো. আবু তাহের সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আজ সব নথিপত্র দেখতে এসেছিলাম। আমরা তদন্ত করেছি। তদন্তের স্বার্থে যা যা দরকার আমরা পেয়েছি।

জানা গেছে, জাবির ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক ভর্তি ফরম থেকে প্রায় ২০ কোটি টাকা আয় হয়। এর মধ্যে ১০ কোটির বেশি ব্যয় হয় পরীক্ষা আয়োজনে। প্রায় ২ কোটির বেশি ব্যয় হয় অন্যখাতে। বাকি ৮ কোটি টাকা শিক্ষক-কর্মকর্তারা নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেওয়ার অভিযোগ উঠে। এ পরিপ্রেক্ষিতে গত ৯ জানুয়ারি ইউজিসি ৩ সদস্যদের এই তদন্ত কমিটি গঠন করে। ভর্তি পরীক্ষার টাকা ভাগাভাগিকে ‘অর্থ আত্মসাৎ’ বলে অভিহিত করেছে ইউজিসি।

ইউজিসির আর্থিক বিধিবিধান অনুসারে, ভর্তি ফরম বিক্রি থেকে পাওয়া আয়ের ৪০ শতাংশ অর্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিলে জমা রাখতে হয়। বাকি ৬০ শতাংশ অর্থ দিয়ে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সার্বিক ব্যয় নির্বাহ করতে হয়।