ভারত যা চায় ক্রিকেটে তাই হয়: শহীদ আফ্রিদি


resma প্রকাশিত: ৫:৫১ অপরাহ্ণ ২১ জুন , ২০২২
ভারত যা চায় ক্রিকেটে তাই হয়: শহীদ আফ্রিদি

ক্রীড়া ডেস্ক: ক্রিকেট বিশ্বে ভারতের প্রভাব অস্বীকার করার জো নেই। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ও কিংবদন্তি অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদিও মেনে নিচ্ছেন ক্রিকেটে এখন ভারতের প্রভাবই সবচেয়ে বেশি। তাই ভারত যা চায় তাই হয়।

আফ্রিদি মূলত এমনটা বলছেন রেকর্ড দামে ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগ আইপিএলের সম্প্রচার স্বত্ব বিক্রি ও আইপিএলের জন্য আইসিসির কাছ থেকে বিশেষ ফাঁকা সূচি পাওয়ার প্রেক্ষাপটে।

২০২৪ সাল থেকে ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লিগের (আইপিএল) প্রতিটি মৌসুম হবে আড়াই মাস ধরে। এ জন্য আইসিসি থেকে স্লটও নির্দিষ্ট করে দেওয়া হবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডকে।

এ খবরের প্রতিক্রিয়ায় স্থানীয় এক চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে পাকিস্তানের এই সাবেক ক্রিকেটার বলেন, ‘এখন সবকিছু বাজার ও অর্থনীতিতে চলে এসেছে। ভারতের ক্রিকেট বাজার সবচেয়ে বড়। তাই তারা যা বলবে, সেটিই হবে।’

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়েছে আইপিএলের সম্প্রচার স্বত্বের নিলাম অনুষ্ঠান। তাতে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে ২৩ হাজার ৫৭৫ কোটি রুপিতে টেলিভিশনের সম্প্রচার স্বত্ব কিনেছে একটি চ্যানেল।

অন্যদিকে ডিজিটাল মিডিয়ায় সম্প্রচার স্বত্ব বিক্রি হয়েছে ২০ হাজার ৫০০ কোটি রুপিতে। তাতে সবমিলিয়ে সম্প্রচার স্বত্ব বিক্রি হয়েছে ৪৩ হাজার ৫০ কোটি রূপিতে। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৫১ হাজার ৭৯৯ কোটি ৫৯ লাখ টাকার বেশি।

মিডিয়া স্বত্ব বিক্রির পর আইপিএলের এখন ম্যাচপ্রতি আয় হবে ১০৫ কোটি ৫০ লাখ রূপি। এর মধ্যে তারা টেলিভিশন থেকে ৫৭.৫ কোটি রূপি আর বাকি অংশ ডিজিটাল মাধ্যম থেকে আয় করবে। আইপিএলের ১৫ বছরের ইতিহাসে এটি সর্বোচ্চ আয় বিসিসিআইয়ের।

এর আগের চক্র ২০১৮ থেকে ২০২২-এর সম্প্রচার স্বত্ব ছিল ১৬ হাজার ৩৪৭ কোটি রুপি। আর ২০২২ থেকে ২০২৭ এর স্বত্ব বিক্রি হলো আগের তুলনায় তিনগুণ বেশি দামে।

এদিকে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের তথ্যমতে, রাগবির জমজমাট আসর এনএফএলে ম্যাচপ্রতি সম্প্রচার প্রতিষ্ঠানের ব্যয় হয় ১ কোটি ৭০ লাখ ডলার। এরপর ইপিএলে ১ কোটি ১০ লাখ ডলার আর এমবিএলের খরচও কাছাকাছি। আর ১ কোটি ৩৫ লাখ ডলারে স্বত্ব বিক্রি করে এখন দুইয়ে উঠে এসেছে আইপিএল।

আফ্রিদি কী আর এমনিই বলছেন ভারত যা চায় তাই হয়!