মস্কো ফেসবুকের অ্যাকসেস সীমিত করে দিয়েছে


meherin প্রকাশিত: ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ ২৮ ফেব্রুয়ারি , ২০২২
মস্কো ফেসবুকের অ্যাকসেস সীমিত করে দিয়েছে

তথ্য ও প্রযুক্তি ডেস্ক : মেটা নিয়ন্ত্রিত সোস্যাল সাইট ফেসবুকের অ্যাকসেস সীমিত করে দিয়েছে রাশিয়া। বেশ কয়েকটি রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত গণমাধ্যমকে মেটার প্লাটফর্মগুলোয় ব্লক করা এবং মনিটাইজেশন বন্ধের পরিপ্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্রেমলিন।মার্কিন সোস্যাল জায়ান্টগুলোর পাশাপাশি স্থানীয় গণমাধ্যমের ওপরও চাপ বাড়াচ্ছে রাশিয়া। ইউক্রেনে সেনা অভিযান নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রকাশের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তারা।

এর আগে রাশিয়া সরকার পরিচালিত চারটি সংবাদমাধ্যমের বিজ্ঞাপন ও মনিটাইজেশন বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিল মেটা। চারটি সংবাদমাধ্যম হচ্ছে আরআইএ নিউজ এজেন্সি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের ভিজদা টিভি ও গ্যাজেটা ডটআরইউ এবং লেনটা ডটআরইউ।মেটার গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স প্রধান নিক ক্লেইগ এক বিবৃতিতে উল্লেক করেন, রাশিয়ার চারটি রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যমের ফেসবুকে শেয়ার করা কনটেন্টের স্বাধীন ফ্যাক্ট চেকিং ও লেবেল দেয়া বন্ধ করার দাবি করেছে রুশ কর্তৃপক্ষ। আমরা সেটি প্রত্যাখ্যান করায় তারা আমাদের পরিষেবা সীমিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরেই ভুয়া তথ্যের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে চাপের মধ্যে রয়েছে ফেসবুক ও প্যারেন্ট কোম্পানি মেটা। প্রতিষ্ঠানটি শেয়ার করা তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য রয়টার্সসহ তৃতীয় পক্ষীয় তথ্য যাচাইকারীদের অংশীদার হিসেবে নিয়ে কনটেন্টের সত্যতা মূল্যায়ন করে। মোটা দাগে মিথ্যা, পরিবর্তিত ও আংশিক মিথ্যা হিসেবে রেটিং করার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

দীর্ঘদিন ধরেই ইন্টারনেট ও প্রযুক্তি জায়ান্টদের ওপর কঠোর নিয়ন্ত্রণ আরোপের চেষ্টা করছে। সমালোচকদের মতে, এতে দেশটিতে ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক স্বাধীনতা হুমকির মুখে পড়েছে। ক্রেমলিন যাদের প্রতিপক্ষ মনে করে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয়া হয় বলে মনে করছেন প্রযুক্তিসংশ্লিষ্টরা।নিয়মিতই মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্টদের ওপর জরিমানা আরোপ করছে রাশিয়া। ক্রেমলিনের কাছে অবৈধ বিবেচিত কনটেন্ট না মুছায় জরিমানার মুখোমুখি হচ্ছিল। গত ডিসেম্বরে মেটাকে ২০০ কোটি রুবল বা ২ কোটি ৪০ লাখ ডলার জরিমানা করেছিল রাশিয়া। এছাড়া গুগল, টুইটার ও টিকটকের মতো প্লাটফর্মও একই ধরনের জরিমানার শিকার হয়েছে।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর মার্ক ওয়ার্নার প্রযুক্তি জায়ান্টদের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে লেখেন, রাশিয়া ও রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত কেউ যেন ফেসবুক, ইউটিউব ও টুইটারের মতো প্লাটফর্মগুলোর অপব্যবহার করতে না পারে সে বিষয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোর দায়িত্ব রয়েছে। মানবাধিকার লঙ্ঘন, মানবিক ও জরুরি সেবাদাতাদের বাধা দেয়া বা ভুয়া তথ্য প্রচারে নিজেদের সেবার অপব্যবহার যেন না হয়, সেটি নিশ্চিত করা তাদের দায়িত্ব।
কয়েক দিন ধরে নীতিমালা লঙ্ঘনের কারণে শত শত ইউটিউব চ্যানেল এবং হাজার হাজার ভিডিও সরিয়ে নেয়ার কথা বলেছে গুগল।

টুইটার বলছে, রাশিয়া ও ইউক্রেনের ব্যবহারকারীরা আপাতত কোনো বিজ্ঞাপন দেখতে পাবেন না। জনসাধারণকে বিভ্রান্তি থেকে দূরে রাখার অংশ হিসেবে এটি করার কথা জানিয়েছে মাইক্রোব্লগিং সাইটটি। পাশাপাশি টুইটার ব্যবহারকারীরা যে অ্যাকাউন্ট অনুসরণ করেন না, সেখান থেকে আসা টুইটও আর দেখতে পাবেন না। তবে গুরুত্বপূর্ণ জননিরাপত্তাবিষয়ক তথ্য প্রচারে বাধা দেবে না তারা। বিজ্ঞপ্তিটি ইউক্রেনীয় ভাষায়ও শেয়ার করে টুইটার।

বিভিন্ন হাইপ্রোফাইল অ্যাকাউন্ট যেন হ্যাকিং থেকে সুরক্ষা পায় তার ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছে সানফ্রান্সিসকোভিত্তিক কোম্পানিটি। এর মধ্যে রয়েছে সরকারি কর্মকর্তা, সরকারি সংস্থা, অ্যাক্টিভিস্ট ও সংবাদকর্মী। খবর রয়টার্স।