মাতৃগর্ভে সন্তানের ডায়াবেটিসের আশঙ্কা কতটুকু


sraboni প্রকাশিত: ৭:৪৯ অপরাহ্ণ ২০ সেপ্টেম্বর , ২০২২
মাতৃগর্ভে সন্তানের ডায়াবেটিসের আশঙ্কা কতটুকু

লাইফস্টাইল ডেস্ক: ডায়াবেটিস মানে রক্তে শর্করার আধিক্য। নারীদের বিশেষ ধরনের ডায়াবেটিস হয়—গর্ভকালীন ডায়াবেটিস বা জেসটেশনাল ডায়াবেটিস। এ ছাড়াও যারা আগে থেকেই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত, তাদের সন্তান ধারণের সময় সতর্কতাসহ ডায়াগনোসিস করে চিকিৎসা দিতে হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণত মায়ের সুগার স্বাভাবিক থাকলে গর্ভের সন্তানের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি থাকে না। মায়ের অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের ফলে সুগার বেশি থাকলে প্লাসেন্টারের মাধ্যমে সন্তানের শরীরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। মায়ের রক্ত গর্ভে শিশু পুষ্ট হয়। ফলে তারও রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যায়।বংশগত ডায়াবেটিস সন্তানেরও হতে পারে। গর্ভের শিশু অপুষ্টিতে ভুগলে দ্রুত তার শরীরে ডায়াবেটিস ডেভেলপ করে। এটি টাইপ-২ ডায়াবেটিস এবং একটু দ্রুত ডেভেলপ করে। ফলে অনাগত সন্তানের সুরক্ষায় কোনোভাবেই ঝুঁকি নেওয়া যাবে না। সঠিক ডায়াগনোসিস করে চিকিৎসা করতে হবে।

বিশেষজ্ঞরা আরও বলছেন, কিছু রোগীর ডায়াবেটিস আগে থেকেই জানা। তারা গর্ভবতী হলে বাড়তি যত্ন নিতে হবে। তা না হলে মা ও গর্ভের সন্তানের সমস্যা হতে পারে। টাইপ-১ বা টাইপ-২ যাই হোক না কেন আগ থেকেই সুগারসহ সবকিছু চিকিৎসকের পরামর্শে ঠিক করে তারপর গর্ভধারণ করতে হবে।প্রেগন্যান্সির চিন্তা করলে মা ডায়াবেটিসের মুখে খাওয়ার ওষুধে অভ্যস্ত থাকলে সেটি বাদ দিতে হবে। ইনসুলিন দিয়ে মাকে এমনভাবে প্রস্তুত করতে হবে, যাতে কনসিভ করলে কোনো ঝুঁকি না দেখা দেয়। এটি অবশ্যই প্রি-প্ল্যান প্রেগন্যান্সি বা পরিকল্পিত গর্ভধারণ হতে হবে। অনাকাঙ্ক্ষিত হলে ভিন্ন কথা