মাভাবিপ্রবি, ঢাবি ও চবির সমন্বয়ে অপরাধবিষয়ক জাতীয় সেমিনার ও কর্মশালা অনুষ্ঠিত


resma প্রকাশিত: ৬:১০ অপরাহ্ণ ২১ জুন , ২০২২
মাভাবিপ্রবি, ঢাবি ও চবির সমন্বয়ে অপরাধবিষয়ক জাতীয় সেমিনার ও কর্মশালা অনুষ্ঠিত

মাভাবিপ্রবি প্রতিনিধি: মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগের উদ্যোগে মাভাবিপ্রবি, ঢাবি ও চবির সমন্বয়ে দিনব্যাপী ক্রাইম, ভিক্টিমস এন্ড জাস্টিস বিষয়ে জাতীয় সেমিনার ও ওয়ার্কশপ আয়োজিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ জুন) সকাল ১০ টায় এ সেমিনার ও ওয়ার্কশপের শুভ উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ ফরহাদ হোসেন। এই জাতীয় সেমিনার ও ওয়ার্কশপের সভাপতিত্ব করেন ক্রিমিনোলজী এন্ড পুলিশ সাইন্স বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ উমর ফারুক। এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ আর এম সোলাইমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. সিরাজুল ইসলাম, লাইফ সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোঃ মাহবুবুল হক। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান খন্দকার ফারজানা রহমান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজী এন্ড পুলিশ সায়েন্স(সিপিএস) বিভাগের চেয়ারম্যান মোঃ সাখাওয়াত হোসেন সহ আরো সংশ্লিষ্ট বিষয়ের শিক্ষক ও গবেষকবৃন্দ এবং শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারে গবেষকরা ক্রাইম, ভিক্টিমস ও জাস্টিস বিষয়ে মোট ১৮ টি গবেষণাপত্র তুলে ধরেন। যেখানে পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু, নৃ-গোষ্ঠী মানুষদের ওপর সহিংসতা ও উচ্ছেদকরণ, পর্যটকদের ওপর সহিংসতা, শিশু ধর্ষণ, ধর্মীয় সন্ত্রাসবাদ, মাদকাসক্তি ও চিকিৎসা, বনাঞ্চলীয় অপরাধ ও বিচারবিভাগীয় চ্যালেঞ্জ, আবহাওয়া সম্পর্কিত অপরাধ, পুলিশের চাদাবাজি, সাইবার পুলিশিং এর চ্যালেঞ্জ, ক্রাইম ম্যাপিং, মহিলা কয়েদিদের মনস্তাত্ত্বিক চাহিদা, বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ পুলিশিং ও রোহিঙ্গা ইস্যুর বিষয়গুলোকে তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে বৈজ্ঞানিক উপায়ে পরীক্ষালব্ধ মতামত তুলে ধরা হয়।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণার সময় মাননীয় উপাচার্য তার বক্তৃতায় বলেন, ‘অপরাধবিজ্ঞানের জ্ঞান অন্বেষণ দেশ ও সমাজের জন্য প্রয়োজন। কারা কিভাবে ক্রাইম করে সেটি নিয়ে গবেষণা করে এই ক্রাইমের হাত থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে হবে।’ এছাড়া তিনি তার বক্তব্যে এই বিভাগে অপরাধশনাক্তকরণ বিষয়ক বায়োলজিক্যাল ও সাইবার ক্রাইম সম্পর্কিত দুটি আধুনিক ল্যাব স্থাপনের ঘোষণা দেন।

অনুষ্ঠানের সভাপতি তার বক্তব্যে দেশে অপরাধবিজ্ঞান সম্পর্কিত জ্ঞান ও গবেষণা বৃদ্ধিতে এ বিভাগের কর্মকান্ড ও সাফল্য তুলে ধরেন এবং শিক্ষার্থীদের গবেষণামুখী করতে এ ধরনের গবেষণার ক্ষেত্র ও প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করেন।

সর্বশেষে ৩ টি সেশনের মাধ্যমে গবেষণাগুলো তুলে ধরার পর অপরাধবিজ্ঞান বিষয়ে গবেষণায় শিক্ষার্থীদের হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। সেই সাথে সেমিনার ও কর্মশালায় উপস্থিত গবেষক ও শিক্ষার্থীদের সনদপত্র প্রদান করা হয়।