রাশিয়ার ৫০ সৈন্যকে হত্যার দাবি ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর


asif প্রকাশিত: ৫:৫২ অপরাহ্ণ ২৪ ফেব্রুয়ারি , ২০২২
রাশিয়ার ৫০ সৈন্যকে হত্যার দাবি ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী রাশিয়ার অন্তত ৫০ দখলদার সৈন্যকে হত্যা করেছে বলে দাবি জানিয়েছে। মস্কোর হামলায় ৭ ইউক্রেনীয়র প্রাণহানির পর বৃহস্পতিবার রাশিয়ার এই অর্ধশত সৈন্য হত্যার দাবি করেছে ইউক্রেন।

ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী বলেছে, বৃহস্পতিবার পূর্বাঞ্চলীয় খারকিভ শহরের কাছের একটি সড়কে রাশিয়ার চারটি ট্যাংক ধ্বংস করা হয়েছে। এছাড়া লুহানস্ক অঞ্চলের একটি শহরে ৫০ রুশ সৈন্যকে হত্যা এবং দেশটির পূর্বাঞ্চলের রাশিয়ার ষষ্ঠ একটি বিমান ভূপাতিত করা হয়েছে। এর আগে রাশিয়ার পাঁচটি বিমান ও একটি হেলিকপ্টার ভূপাতিত করার দাবি করেছিল ইউক্রেন।

ইউক্রেন সামরিক বাহিনীর বরাত দিয়ে । তবে রুশ সৈন্যদের প্রাণহানির সংখ্যা তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হতে পারেনি বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে দেওয়া এক বার্তায় ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী বলেছে, শচস্ত্য শহর এখন ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। রাশিয়ার ৫০ দখলদার সৈন্য নিহত হয়েছে। ক্রামতোর্স্ক জেলায় রাশিয়ার আরেকটি বিমান ধ্বংস করা হয়েছে। এটি নিয়ে ছয়টি বিমান ধ্বংস করা হয়েছে। তবে সামরিক বাহিনীর বিমান ও সাঁজোয়া যান ইউক্রেনের সৈন্যরা ধ্বংস করেছে বলে কিয়েভ যে দাবি করছে, তা অস্বীকার করেছে রাশিয়া। ইউক্রেনের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বলেছে, দেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় খেরসন অঞ্চলের সীমান্তে সংঘাতে অন্তত তিন সৈন্য নিহত এবং কয়েকজন আহত হয়েছেন।

রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর বোমা হামলায় ইউক্রেনে অন্তত ৭ জন নিহত হয়েছে বলে দেশটির পুলিশ জানিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের বন্দরনগরী ওডেসায় রুশ সেনাবাহিনীর বোমা হামলায় নিহতের এই ঘটনা ঘটে।

ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বলেছেন, বন্দরনগরী ওডেসার বাইরের পোডিলস্ক শহরে সেনাবাহিনীর একটি ইউনিটে রাশিয়ার বোমা হামলায় ৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও সাতজন।

এছাড়া বোমা হামলার পর থেকে পোডিলস্কে নিখোঁজ রয়েছেন আরও ১৯ জন। মারিউপোল শহরে বোমা হামলায় আরও একজন নিহত হয়েছেন বলে ইউক্রেনের পুলিশ জানিয়েছে।

সদ্য স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেওয়া ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় গণপ্রজাতন্ত্রী দনেৎস্ক এবং লুহানস্ককে কিয়েভের আগ্রাসন থেকে রক্ষার জন্য দেশটিতে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন বলে দাবি করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এছাড়া ইউক্রেন দখলে নেওয়ার রাশিয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে বৃহস্পতিবার দাবি করেছেন তিনি। বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে পুতিন বলেছেন, সামরিক অভিযানের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য হলো—গত আট বছর ধরে কিয়েভ শাসকদের গণহত্যার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হওয়া লোকজনকে রক্ষা করা। একই সঙ্গে ইউক্রেনকে অসামরিকীকরণ এবং নাৎসিবাদমুক্ত করবে মস্কো। এছাড়া যারা বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে বহুমুখী নৃশংসতা চালিয়েছে তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে।

তিনি বলেন, ইউক্রেনের পুরো ভূখণ্ড দখলে নেওয়ার কোনো সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা নেই মস্কোর। রাশিয়ার এই প্রেসিডেন্ট বলেন, ইউক্রেনের ভূখণ্ডগুলো দখলের পরিকল্পনা আমাদের নেই। আমরা কারও ওপর জোর করে কোনো কিছু আরোপ করতে যাচ্ছি না। কিয়েভের সৈন্যরা এখনও রাশিয়ার স্বাধীন ঘোষণা করা দনেৎস্ক এবং লুহানস্ক অঞ্চলের বিশাল অংশের নিয়ন্ত্রণ করছে।

ইউরোপে যুদ্ধ ফিরিয়ে আনায় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নিন্দা জানিয়েছেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন। বৃহস্পতিবার ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করায় রাশিয়ার বিরুদ্ধে নজিরবিহীন কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

উরসুলা ভন ডার লিয়েন বলেছেন, রাশিয়ার অর্থনৈতিক ভিত্তি এবং এর আধুনিকায়নের সক্ষমতা দুর্বল করার জন্য ব্যাপক নিষেধাজ্ঞার একটি প্যাকেজ প্রস্তাব করা হবে।তিনি বলেন, এই প্যাকেজে আমরা রাশিয়ার প্রধান প্রধান প্রযুক্তি এবং বাজারে প্রবেশ ঠেকানোর মাধ্যমে দেশটির অর্থনীতির কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ খাতগুলোকে লক্ষ্যবস্তু করব। আমরা রাশিয়ার অর্থনৈতিক ভিত্তি এবং এর আধুনিকায়নের সক্ষমতাকে দুর্বল করে দেব।

এছাড়াও আমরা ইউরোপীয় ইউনিয়নে রাশিয়ার সম্পত্তি জব্দ এবং ইউরোপের আর্থিক বাজারে রুশ সব ব্যাংকের প্রবেশ বন্ধ করব। নিষেধাজ্ঞার প্রথম প্যাকেজের মতো আমরা অংশীদার এবং মিত্রদের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সংশ্লিষ্ট। এসব নিষেধাজ্ঞা ক্রেমলিনের স্বার্থ এবং যুদ্ধে অর্থায়নের ক্ষমতার ওপর ব্যাপক প্রভাব ফেলার জন্য সাজানো হয়েছে।