‘শূন্যরেখায় হয় মরব, না হয় মিয়ানমারে ফিরব’


resma প্রকাশিত: ৯:২১ পূর্বাহ্ণ ২১ সেপ্টেম্বর , ২০২২
‘শূন্যরেখায় হয় মরব, না হয় মিয়ানমারে ফিরব’

স্টাফ রিপোর্টার: শূন্যরেখায় বসবাসকারী রোহিঙ্গাদের নিয়ে এবার নতুন খেলায় মেতে ওঠেছে মিয়ানমার বাহিনী। তাদের শূন্যরেখা থেকে তাড়াতে আগ্রাসী আচরণের পাশাপাশি কাঁটাতার ঘেঁষে বাড়িয়ে দিয়েছে সৈন্য; প্রতিনিয়ত করছে গোলাগুলি ও গোলার বিস্ফোরণ।

গত এক মাসের বেশি সময় ধরে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালেও সীমান্তে থমথমে অবস্থা।

এমন পরিস্থিতিতে আতঙ্ক বিরাজ করলেও শূন্যরেখার রোহিঙ্গারা বলছেন, হয় মরব, না হয় স্বদেশ মিয়ানমারে ফিরব।

শূন্যরেখার রোহিঙ্গা আরকানি বলেন, ‘মিয়ানমার সেনাদের হাতে বড় বড় বোমা রয়েছে। হাতে রাইফেল, কাঁধে গুলি নিয়ে টহল দিচ্ছে। আর এসব নিয়ে গোলাগুলি করছে। আর হাতবোমা আছে, যে কোনো সময় মেরে দেবে এ আতঙ্ক রয়েছে।’

এদিকে সীমান্তে মিয়ানমার বাহিনীর গোলাগুলি ও মর্টারের গোলার কারণে নিরাপত্তা চেয়ে জাতিসংঘের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে শূন্যরেখার রোহিঙ্গারা।

শূন্যরেখার রোহিঙ্গা ছকিনা খাতুন বলেন, ‘মিয়ানমার সরকার আমাদের গুলি মারছে, আমরা যাতে শূন্যরেখা থেকে চলে যাই। এদিক-ওদিক গুলি করছে, বোমা ফাটাচ্ছে।’

জিহাদি নামের আরেক রোহিঙ্গা বলেন, ‘মিয়ানমারের সেনাবাহিনী গোলার আঘাতে আমাদের শূন্যরেখায় এক রোহিঙ্গার মৃত্যু হয়েছে; আহত হয়ে চারজন এখনো হাসপাতালে। আমরা শূন্যরেখায় রয়েছি, এখান থেকে কোথাও যাব না; যদি বিদেশিরাও নিয়ে যায়, তাও না। শুধু নিজ দেশ মিয়ানমারে ফিরব নাগরিক অধিকার নিয়ে।’

এদিকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ৩নং ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, শূন্যরেখার রোহিঙ্গাদের নিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে মিয়ানমার প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ায় তাদের তাড়াতে নতুন পাঁয়তারা করছে।

গত এক মাসের বেশি সময় ধরে শূন্যরেখার কাঁটাতার ঘেঁষে বেড়েছে মিয়ানমার সেনাদের অবস্থান, বাড়িয়েছে ক্যাম্পও। আর প্রতিদিনই চলছে গোলাগুলি ও মর্টারের গোলার বিকট শব্দ। এরই মধ্যে গত শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) মিয়ানমার সেনাদের ছোড়া গোলার আঘাতে মারা যান শূন্যরেখায় বসবাস করা এক রোহিঙ্গা আর আহত হন ৫ জন।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার থেকে মর্টারশেল, গোলাগুলিসহ নানা ভারী অস্ত্রের আওয়াজে এপারের ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু ও বাইশফাঁড়ি এলাকার ২৪ হাজার মানুষ চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।